Thursday , April 9 2020
Breaking News
You are here: Home / খুলনা ও বরিশাল / প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে চেকে জাল স্বাক্ষর করে টাকা উত্তোলনের চেষ্টার অভিযোগ: সাময়িক বরখাস্ত
প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে চেকে জাল স্বাক্ষর করে টাকা উত্তোলনের চেষ্টার অভিযোগ: সাময়িক বরখাস্ত

প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে চেকে জাল স্বাক্ষর করে টাকা উত্তোলনের চেষ্টার অভিযোগ: সাময়িক বরখাস্ত

চেকে স্বাক্ষর জালিয়াতি করে ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলনের চেষ্টায় ব্যার্থ ত্রিবেনী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোশারফ হোসেন। এই অভিযোগের ভিত্তিতে সাময়িক বরখাস্ত হয়েছেন এই শিক্ষক। জানা যায়, গত ৫ ফেব্রুয়ারি ত্রিবেনী মাধ্যমিক বিদ্যালয় এর প্রধান শিক্ষক মোশারফ হোসেন বিদ্যালয়ের এডহক কমিটির সভাপতি শৈলকুপা উপজেলা নির্বাহী অফিসার এর স্বাক্ষর জাল করে সোনালী ব্যাংক শেখপাড়া শাখা থেকে ১ লক্ষ ১৭ হাজার টাকা উত্তোলন করতে যায়। কিন্তু ব্যাংক ম্যানেজার খালেকুজ্জামান এর সন্দেহ হলে তিনি চেক ক্যাশ না করে ফেরত দেন। এবিষয় জানাজানি হলে শৈলকুপা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও বিদ্যালয়ের এডহক কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম নিজ দপ্তরে গত ১৩ ফেব্রুয়ারি সোনালী ব্যাংক শেখপাড়া শাখার ম্যানেজার খালেকুজ্জামান, শৈলকুপা উপজেলা শিক্ষা অফিসার শামীম আহমেদ খান ও প্রধান শিক্ষক মোশারফ হোসেন কে ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে ব্যাংক ম্যানেজার খালেকুজ্জামান লিখিত ভাবে জানান যে প্রধান শিক্ষক যে ১ লক্ষ ১৭ হাজার টাকার চেক দিয়েছিলেন সেই চেকে সভাপতির স্বাক্ষর জাল। সেই কাগজে প্রধান শিক্ষক নিজেও স্বাক্ষর করেন। ওই দিনই প্রধান শিক্ষক মোশারফ হোসেন কে সাময়িক বরখাস্ত করে সহকারী প্রধান শিক্ষক শহিদুল রহমান কে প্রধান শিক্ষক এর দায়িত্ব দেয়া হয় এবং প্রধান শিক্ষক মোশারফ হোসেন কে ৭ দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নির্দেশ দেওয়ষা হয়। ৭ দিনের মধ্যে তিনি অপরাধ স্বীকার করে ক্ষমা চান বলে একটি সূত্র জানায়। এদিকে শিক্ষা বোর্ডের নিয়ম অনুযায়ী ৩ সদস্যের কমিটি গঠন করার নিয়ম রয়েছে। সোনালী ব্যাংক শেখপাড়া শাখার ম্যানেজার খালেকুজ্জামান এর মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ইউএনও স্বাক্ষর মেলেনি তাই চেক ফেরত দিয়েছি। এব্যাপারে শৈলকুপা উপজেলা নির্বাহী অফিসার স্যার আমাকে ডেকেছিলেন আমি সেখানে গিয়ে একই কথা বলেছি। এদিকে ত্রিবেনী মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক মোশারফ হোসেন এর মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোন প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে বলেন স্কুলে আসেন কথা হবে। তদন্তের বিষয়ে শৈলকুপা উপজেলা শিক্ষা অফিসার শামীম আহমেদ খান এর মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তদন্তে প্রধান শিক্ষক মোশারফ হোসেন অপরাধী সেই প্রমাণ পেয়েছি। আমি তদন্ত রিপোর্ট শৈলকুপা উপজেলা নির্বাহি অফিসার বরাবর তদন্ত রিপোর্ট জমা দিয়েছি। এবিষয়ে জানতে শৈলকুপা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও ত্রিবেনী মাধ্যমিক বিদ্যালয় এর এডহক কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম এর মুঠোফোনে যোগাযোগ ফোন দিলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। এদিকে অপর একটি সূত্র জানায় যে প্রধান শিক্ষক মোশারফ হোসেন মোটা অংকের টাকা দিয়ে বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে।

About দৈনিক সময়ের কাগজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Scroll To Top