Friday , July 10 2020
Breaking News
You are here: Home / ধর্ম / ত্রিশ রমজানের ফজিলত
ত্রিশ রমজানের ফজিলত

ত্রিশ রমজানের ফজিলত

“নফসকে দুনিয়ার সকল উপভোগ্য বস্তু থেকে বিরত রাখা হচ্ছে সবচেয়ে লাভজনক রোজা।”
-গুরারুল হিকাম, খণ্ড ১, পৃঃ নং ৪১৬, হাদিস ৬৪।

“যে রোজাদার তার জিহ্বা, কান, চোখ ও অন্যান্য অঙ্গ প্রত্যঙ্গকে গুনাহ থেকে বিরত রাখে না, তার রোজা কী কাজে আসবে?!!!”
বিহারুল আনওয়ার, খণ্ড ৯৩, পৃঃ নং ২৯৫।

ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সা) রমজান মাসে ৩০তম রোজায় এই দোয়া পড়তেন। ‘আলবালাদুল আমিন’ ও ‘মিসবাহুল কাফআমি’ নামক গ্রন্থে রয়েছে এই দোয়াঃ

ﺍَﻟﻠّـﻬُﻢَّ ﺍﺟْﻌَﻞْ ﺻِﻴﺎﻣﻰ ﻓﻴﻪِ ﺑِﺎﻟﺸُّﻜْﺮِ ﻭَﺍﻟْﻘَﺒُﻮﻝِ ﻋَﻠﻰ ﻣﺎ ﺗَﺮْﺿﺎﻩُ ﻭَﻳَﺮْﺿﺎﻩُ ﺍﻟﺮَّﺳُﻮﻝُ، ﻣُﺤْﻜَﻤَﺔً ﻓُﺮُﻭﻋُﻪُ ﺑِﺎﻻُﺻُﻮﻝِ، ﺑِﺤَﻖِّ ﺳَﻴِّﺪِﻧﺎ ﻣُﺤَﻤَّﺪ ﻭَﺁﻟِﻪِ ﺍﻟﻄّﺎﻫِﺮﻳﻦَ، ﻭَﺍﻟْﺤَﻤْﺪُ ﻟﻠﻪِ ﺭَﺏِّ ﺍﻟْﻌﺎﻟَﻤﻴﻦَ

উচ্চারণঃ “আল্লাহুম্মাজ্ আ’ল্ সিয়ামী ফি-হি বিশ্-শুক্-রি ওয়াল ক্বাবু-লি আ’লা মা তারদ্ব-হু ওয়া ইয়ারদ্বাহুর্ রাসূল, মুহ্-কামাতান্ ফুরুউহু বিল্-উসূল্, বিহাক্ব্-ক্বি সাইয়িদিনা মুহাম্মাদিউ ওয়া আলিহিত্ব ত্বহিরীন, ওয়াল্ হাম্দু লিল্লাহি রাব্বিল আ’লামিন।”

হে আল্লাহ ! তুমি ও তোমার রাসুলের সন্তুষ্টি মোতাবেক আমার রোজাকে পুরস্কৃত করো এবং কবুল করে নাও। আর আমার রোজার সব ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র বিষয়গুলোকে তার মূল বিষয়গুলোর মাধ্যমে শক্তিশালী করে দাও। আমাদের নেতা হযরত মুহাম্মাদ (সা.) ও তাঁর পবিত্র আল আওলাদের উসিলায়। সকল প্রশংসা জগতসমূহের প্রতিপালক একমাত্র আল্লাহর জন্যে।

রমজানের শেষ রাত্রি রোজাদারের সকল গুনাহ মাফ করিয়া দেওয়া হয়। সাহাবারা আরজ করিলেন , ইয়া রাসুলুল্লাহ ! এই ক্ষমা ও মাফের রাত্রি কি শবে ক্বদরের রাত্রি ? হুজুর পাক (সাঃ) বলেন , না! না! নিয়ম এই যে, মজুর মজুরী পায় যখন তার কাজ শেষ হয়। অর্থাৎ শবে ক্বদরের রাত্রি নয় বরং প্রত্যেক রাত্রি মূল্যবান।
____আমিন____

About দৈনিক সময়ের কাগজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Scroll To Top
error: Content is protected !!