Friday , October 23 2020
Breaking News
You are here: Home / কুষ্টিয়ার খবর / যৌতুক না দেয়ায় স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ
যৌতুক না দেয়ায় স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

যৌতুক না দেয়ায় স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

কুষ্টিয়া অফিসঃ
কুষ্টিয়ার সদর উপজেলায় রাকিবুল ইসলাম মালেক নামের এক আনসার সদস্যের বিরুদ্ধে স্ত্রীকে মারপিট করে হত্যা করার অভিযোগ উঠেছে। গত শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) বিকালে যৌতুকের দাবিতে স্ত্রী মুক্তি খাতুনকে বেধড়ক মারপিট করে স্বামী মালেক। এতে গুরুতর অবস্থায় তাকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার রাত ৯টার দিকে তার মৃত্যু হয়। ঘটনাটি উপজেলা আশাননগর গ্রামে মুক্তার স্বামীর বাড়ি ঘটেছে।

নিহত মুক্তি খাতুন ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা উপজেলার দুধসর ইউনিয়নের বড় কুলচারা গ্রামের মুক্তার হোসেনের মেয়ে। ৫ বছর পারিবারিকভাবে কুষ্টিয়া জেলার সদর উপজেলার গোস্বামী ইউনিয়নের আশাননগর গ্রামের হাবিবুর রহমানের ছেলে রাকিবুল ইসলাম মালেকের সাথে বিয়ে হয়। তাদের সংসারে দুই বছর বয়সের একটি মেয়ে সন্তান রয়েছে।

নিহত মুক্তা খাতুনের পিতা মুক্তার আলী বলেন, আমার মেয়ে মুক্তা খাতুনকে মালেক মারপিট করে হত্যা করেছে। ৫ বছর আগে মালেকের সাথে মুক্তার বিয়ে দিয়েছি। বিয়ের পর থেকে যৌতুকের দাবিতে মুক্তাকে মালেক প্রায় প্রায়ই মারপিট করে জখম করে। শেষমেশ মারপিট করে মুক্তাকে হত্যা করলো মালেক। আমি মালেকের বিচার চাই। মালেকের ফাসি চাই।

তিনি আরো বলেন, মুক্তার শরীরের মাথায়, বুকে, হাতে, মুখে ও পায়ের বিভিন্ন স্থানে পিটিয়ে রক্তাক্ত করেছে মালেক। আমি কুষ্টিয়ার এসপি কাছে বিচার চাই। আইনের মাধ্যমে মালেকের শাস্তি চাই।

জানা যায়, মালেকের সাথে মুক্তার বিয়ে হওয়ার আগে মালেক আরও তিনটা মেয়ের সাথে বিয়ে করেছিল। এক স্ত্রীকে বিষ পান করিয়ে হত্যা করে, অরেক স্ত্রী মালেককে তালাক দেয় এবং আরেক জন স্ত্রীকে মারপিট করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়।

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। সেখানে গিয়ে নিহতের স্বামী মালেককে পাওয়া যায়নি। মালেক পলাতক বলে জানা গেছে।

মালের স্বজনরা জানায়, মালেক আনসার বাহিনীতে চাকরি করে। সংসারে অভাব অনটন ছিল। এনিয়ে সংসারে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে সবসময় ঝগড়া লেগেই থাকতো। পারিবারিক অশান্তির কারনে বিষাক্ত কিছু খেয়ে মারা যায়।

About দৈনিক সময়ের কাগজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Scroll To Top
error: Content is protected !!