Sunday, November 19, 2017
সংবাদ শিরোনাম
You are here: Home / মতামত / স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে কুষ্টিয়াবাসি : অবৈধ হাসপাতাল ও ক্লিনিকের ছড়াছড়ি

স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে কুষ্টিয়াবাসি : অবৈধ হাসপাতাল ও ক্লিনিকের ছড়াছড়ি

স্টাফ রিপোর্টার : বড় ধরণের স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছে কুষ্টিয়াবাসি। দেড় শতাধিক সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল এবং ক্লিনিক-প্যাথলজির চিকিৎসা বর্জ্যে দূষিত হচ্ছে পরিবেশ। এসব বর্জ্য নষ্ট কিংবা শোধনের কোনো ব্যবস্থা না থাকায় তা যত্রতত্র ফেলা হচ্ছে বিভিন্ন স্থানে। এতে কুষ্টিয়ার কয়েক লাখ মানুষ  স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছেন। পরিবেশ অধিদফতরের কর্মকর্তাদের মতে, একেকটি ক্লিনিক একেকটি ইটভাটার মতোই পরিবেশ দূষণকারী প্রতিষ্ঠান।
ঢাকা ও খুলনার ২১টি বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার এসব অভিযোগের প্রে¶িতে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ¯^াস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী মো. নাসিমের নির্দেশে ¯^াস্থ্যমন্ত্রণালয় ও ¯^াস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালকের দপ্তরের যৌথ অভিযানে এসব ¯^াস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করা হয়েছে।
¯^াস্থ্যমন্ত্রণালয়ের এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এসব প্রতিষ্ঠান অবৈধ বলে উলে­খ করা হয় বিজ্ঞপ্তিতে। কিন্তু কুষ্টিয়ার প্রে¶াপটে সে সব অভিযান চলছে না। কুষ্টিয়ার বেসরকারি ক্লিনিকগুলোতে সেবার পরিবেশ নেই, ডাক্তার থাকে না এবং প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি নেই। এসব অভিযোগের বাইরে ভয়াবহ অভিযোগ উঠেছে, এসব ক্লিনিকগুলোর অধিকাংশেই এখন চলছে অনৈতিক কারবার। বিশেষ করে গ্রাম পর্যায়ের কোয়াক ডাক্তারদের মাধ্যমে এসব ক্লিনিক রোগি সংগ্রহ করে। ঐসব ডাক্তারদের মনোরঞ্জণের জন্য কুষ্টিয়ার এসব ক্লিনিকগুলোর মালিকরা বিশেষ ধরণের এ সেবা দিয়ে থাকে।
ব্যাঙের ছাতার মত গজিয়ে ওঠা কুষ্টিয়ার ওলিতে গলিতে এখন ক্লিনিকের সাইনবোর্ডে ভরা। সেখানে  নার্স ও আয়ার পরিচয়ে রাখা হয় ভ্রাম্যমাণ দেহব্যবসায়ী। কোন ডাক্তার বা রোগি না থাকলেও এসব ক্লিনিকগুলো দিনের পর দিন চলে যাচ্ছে এসব অবৈধ কারবার করে। এর ফলে বৈধ ক্লিনিকগুলোর ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Scroll To Top