Saturday , May 8 2021
You are here: Home / মতামত / করোনার দ্বিতীয় ঢেউ : সাবধানতাই সম্বল :: উজ্জ্বল রায়, প্রধান সম্পাদক, দৈনিক গড়ব বাংলাদেশ
করোনার দ্বিতীয় ঢেউ : সাবধানতাই সম্বল :: উজ্জ্বল রায়, প্রধান সম্পাদক, দৈনিক গড়ব বাংলাদেশ

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ : সাবধানতাই সম্বল :: উজ্জ্বল রায়, প্রধান সম্পাদক, দৈনিক গড়ব বাংলাদেশ

পথ চলে সবাই, পথ দেখায় কেউ কেউ….. যিনি পথ দেখান তিনিই পথ প্রদর্শক ।নিঃসন্দেহে বলা যায় এই মুহূর্তের পথ প্রদর্শক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক। আস্হা রাখতে হবে তাঁদের নির্দেশনার উপরই। মানতে হবে স্বাস্থ্য বিধিও।
আবার লড়াই করতে হবে। তবে এটা আমাদের নিজেদের লড়াই নিজেদেরকে নিয়েই। স্বীকার করতে অসুবিধা নেই কিছুটা মানসিক ভাবে নিশ্চিত হয়েছিলাম। কিন্তু আবারও কোভিড -১৯ যে ভাবে মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে তাতে করে কপালে চিন্তার ভাঁজ স্পষ্ট। যদিও অনেক আগে থেকেই গবেষক ও চিকিৎসকরা করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ জনজীবনে আছড়ে পড়ার পূর্বাভাস বহুবার দিয়েছেন। হয়তো আমরাই সাবধানতাকে সঙ্গী করে চলতে অনিচ্ছা প্রকাশ করেছি বারংবার! কিন্তু আর নয়! যেমন ভাবে মাস্ক পড়াটা শুরু করেছিলাম সেই অভ্যাসকেই সঙ্গী করে তুলতে হবে নিত্যদিনের জীবন যাএাই।এক বছর আগে একে অপরের সঙ্গে যে দূরত্বটা বাড়িয়েছিলাম আর কিছু দিন সে দূরত্বটা থাক না।অন্তরের যোগ তো রয়েছেই। সব কিছু স্বাভাবিক হলে সেটা না হয় পুষিয়ে নেবেন।বারে বারে সাবান- হ্যান্ডওয়াশ- স্যানিটাইজ দিয়ে জীবাণু মুক্ত রাখা সত্যিকারের কঠিণ দায়িত্ব কিন্তু জটিল কাজ বলে তো আর ফেলে রাখা যায় না। সেটি অভ্যাসের মধ্যে নিয়ে আমাদের চেষ্টা করে যেতে হবে।ভাইরাস বিশেষজ্ঞদের গবেষণার তথ্য বলে যে,মানব শরীরে ভাইরাস সংক্রমণের প্রবেশদ্বার প্রধানত চারটি ; সেগুলি হলঃ নাক- মুখ- চোখ ও কান। এর মধ্যে সবচেয়ে সক্রিয় প্রবেশদ্বার নাক ও মুখ। এখন নাক ও মুখ এই দুটি অঙ্গ কে শতভাগ দায়িত্ব নিয়ে সংক্রমণের সঠিক রাস্তা দেখায় হাত! এখানেই আমাদের লড়াই। সংক্রমণের হাত থেকে নিজেকে সুরক্ষিত রাখতে শরীরের প্রধান তিনটি অঙ্গ নাক, মুখ ও হাত এই তিনটির সুরক্ষা প্রয়োজন। সর্তক বিধি কার্যকরী করতে সরকারি ও প্রশাসনের যতটা দায় বদ্ধ তার থেকে কিছুটা দায়িত্বশীল হতে হবে সাধারণ জনগণকে। কারণ রাষ্ট্রের খাতায় আপনি নিছকই সংখ্যা কিন্তু পরিবারের নিকট…পৃথিবী! এমন এক জটিল পরিস্থিতির মধ্যে আমজনতা এসে পৌঁছেছে।সেখান থেকে পারিবারিক দায়বদ্ধতাকে প্রাধান্য দেওয়া অধিক গুরুত্বপূর্ণ।
এদিকে পোষাক কারখানাসহ সকল উৎপাদনমূখী কল- কারখানা খোলা রাখার পাশাপাশি নিত্যপণ্য – সবজিবাজার- বইমেলা খোলা! বন্ধ থাকা মার্কেটের ব্যবসায়ী কর্মচারীদের লাগাতার আন্দোলনের হাওয়া রাজধানী ছেড়ে মফস্বলেও উওাপ।
অপরদিকে করোনা ভাইরাসের অনিয়ন্ত্রিত কষাঘাত। জনজীবন বিভ্রান্ত। অন্তত করোনা ভ্যাকসিন আবিষ্কৃত হয়েছে এবং তা প্রয়োগ প্রক্রিয়ান্ত চলমান…।যদিও ফলাফল দৃশ্যমান নয়,তবুও আত্নবিশ্বাসী হয়ে ওঠার অস্ত্র হিসেবে বেশ বলিয়ান! এই ধারণার ওপর আশ্বস্ত হয়ে যদি মানুষ তাঁর চেনা স্বাভাবিক ছন্দে অসতর্ক মূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করেন তবে তা দায়িত্বঙ্গানহীণ কাজ হবে।ইতিহাস সাক্ষী করোনা কালের এক বছরের। ছন্দ পতন হলে যেমন সূর বেসূর লাগে তেমনি করোনার প্রকোপ সাধারণ জনজীবনে করিয়াছে এবং সেটি বেসূর হয়ে উঠছে।কি বিভৎস, ভয়ানক পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে আমরা চেষ্টা করছি।কত সকার মানুষ এক ঝটকায় বেকার হয়ে গেছেন।আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিনিয়ত এতটা বেড়ে যাচ্ছিল যে সরকারী- বেসরকারী আন্ডার কনস্ট্রাকশন ভবন, আবাসিক হোটেল,বসুন্ধরা কনভেনশন হল,শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভবনকে অ- স্হায়ী “কোভিড হাসপাতাল” বানাতে হয়েছে। আমাদের স্বজনেরা বিদেশেতো বটেই প্রতিবেশী দেশে চিকিৎসা সেবা নিতে গিয়ে চরম অসুবিধার মুখোমুখি হতে হয়েছে। তাঁদের নিজ ঘরে ফেরার আকুতি, কান্না অসহায়তা আমরা কেমন করে ভুলি! লকডাউন, চারিদিকে সুনসান, নিস্তব্ধতা, নিজ নিজ আশ্রয়স্হলে মানসিক অস্হিরতায় বিভ্রান্ত সকলে। সেই সব দিনগুলি চাইলেই ভুলে থাকা যায়..? ভয়াবহ অতীত ভুলে যাওয়া ভালো কিন্তু যে ভুল সিদ্ধান্তের কারণে আমরা,আমাদের পরিবারের সর্বোপরি সমাজের বুকে যে কালো ছায়া ঘনিয়ে এসেছিল সেই ভুলকে শুধুরে নেওয়া আমার অথবা আমাদের দায়িত্ব নয়..? অতএব না, করোনা ভাইরাস তার দ্বিতীয় ঢেউ ছোবল নিশ্চিত করেছে।কিন্তু আমাদের এই ছোবলকে প্রতিহত করতে হবে দায়িত্বপূর্ণ মানসিকতা সঙ্গী করে।প্রতিরোধ মূলক উপকরণ গুলিকে সবার কল্যাণে ব্যবহার নিশ্চিত হতে হবে।অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে যে দৃষ্টান্ত আমরা সৃষ্টি করেছি এর পুনরাবৃত্তি প্রতিফলন যেন আমরা প্রতি মুহূর্তে অনুভব করতে পারি। যে রাষ্ট্র নিরসনে সমস্ত গবেষক, বিঙ্গানী, চিকিৎসকবৃন্দ নিরলস পরিশ্রম করছেন। পাশাপাশি আমরা বিভিন্ন ক্ষেত্রের সাধারণ জনগণ করোনা মোকাবিলায় সতর্কমূলক দায়িত্ব পালন করি। এই প্রতিজ্ঞা আজ গ্রহণ করতে হবে।

About দৈনিক সময়ের কাগজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Scroll To Top
error: Content is protected !!