Monday , June 21 2021
You are here: Home / ঢাকা ও ময়মনসিংহ / রাজবাড়ীতে যুবককে জবাই করে হত্যা ,রহস্য উন্মোচনে তৎপর পুলিশ
রাজবাড়ীতে যুবককে জবাই করে হত্যা ,রহস্য উন্মোচনে তৎপর পুলিশ

রাজবাড়ীতে যুবককে জবাই করে হত্যা ,রহস্য উন্মোচনে তৎপর পুলিশ

রাজবাড়ী অফিসঃ রাজবাড়ীতে সুজন তালুকদার (২৮) নামে এক যুবক কে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ও গলা কেটে নির্মমভাবে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। এ সময় আহত হয়েছেন রিমন ও একরামুল নামে আরও দুজন।

সোমবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে মিজানপুর ইউনিয়নের গঙ্গাপ্রসাদপুর গ্রামের  ও দুর্গাপুর এর বর্ডার এলাকায় কৃষি জমিতে রেললাইনের পাশে এ ঘটনা ঘটে। নিহত সুজন তালুকদার মিজানপুর ইউনিয়নের গঙ্গাপ্রসাদপুর এলাকায় গিয়াসউদ্দিন তালুকদারের ছেলে। তিনি যৌকুরা এলাকায় বালু ব্যাবসায়ীর চাতালে কাজ করতো।

এ ঘটনায় আহত দুজনকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে  রিমনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয় ।

মঙ্গলবার (২৭শে এপ্রিল) দুপুরে সরেজমিনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন দেখা যায় যেখানে সুজনকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছিলো সেই কৃষি খেতে রক্তের দাগ লেগে আছে। সেলো মেশিন দিয়ে সেখানে পাট খেতে নিয়মিত পানি দেন আব্দুর রাজ্জাক নামে একজন কৃষক । তিনি জানান, আমি নিয়মিত খেতে পানি দেই ঘটনার আগে আমি খেতে পানি দিচ্ছিলাম । ৫-৬ জন লোক খেতের আইলে বসে ছিলো। তাদের মধ্যে একজন এসে আমার কাছ থেকে বোতলে পানি চাইলো ,আমি পানি ভড়ে দিয়ে ইফতারের আগেই বাড়ী যাই । গোসল করার জন্য যখন বাড়ীর পাশে পুকুরে যাচ্ছি তখন দেখেই আমার সেলো মেশিনের কাছে হৈচৈ । আমি গোসল সেরে এসে দেখি অনেক মানুষ। আর এঘটনা ঘটেছে। তবে প্রতিদিন ই ছেলেপেলেরা এখানে এসে আড্ডা মারে তাই কে কখন এলো গেলো সেদিকে আমার খেয়াল নেই তাই কাউকেই আমি চিনিনা।

নিহত সুজনদের বাড়ীতে গিয়ে দেখা যায়, চারিদিকে শুধু কান্নার রোল। ছোট একটি ছেলে কে রেখে মারা গেলো সুজন। সইতে পারছেনা পরিবারও।পুলিশের সদস্যও মোতায়েন ছিলো ওই বাড়ীতে। নিহত সুজনের মা, বোন , স্ত্রী সবার কান্নায় আকাশ বাতাস একাকার। এলাকার মানুষেরা এসে ভরে গেছে । পরিবারের সদস্যদের শান্তনা দিচ্ছে সবাই। পোষ্ট মরটেম এর পর বাড়ীতে লাশ এনে গোসল করানো হয় পরে বিকেলে জানাজা শেষে গঙ্গাপ্রসাদপুর কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয় ।

নিহতের স্ত্রী সালমা বেগম বলেন, পূর্বশত্রুতার জেরে আমার স্বামীকে হত্যা করা হয়েছে। সন্ত্রাসীরা এর আগেও আমাদের বাড়িতে হামলা করে ঘরবাড়ি ভাঙচুর করেছিল । তার কোন বিচার হয়নি। ঘটনার দিন আমার রোজা রেখে ইফতার শেষ করে বের হয়, কোথায় যাচ্ছো জিজ্ঞাস করলে সে জানায় খুব গরম তাই বাতাসে ঘুরে আসি। পরে কিছুক্ষন পর শুনি যে তাকে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে। নিহত সুজনের সাথে কারো কোন শত্রুতা ছিলো কি না জানতে চাইলে তিনি আরো জানান, গত বছর এলাকার মুরাদ পুলিশের চাকুরি করে তাদের সাথে কবরস্থান এর কমিটি ও তার পাশেই একটি কুম বা পুকুর নিয়ে বিতর্ক হয়। আমার স্বামী শুধু বলেছিলো এই কুম বা ছোট পুকুর ইজারার টাকা যেন কেউ না খায় ,এ টাকা যেন মসজিদ ও কবরস্থানের কাজে ব্যয় করা হয়। এ নিয়ে  পুলিশে চাকুরি করে সেই মুরদদের সাথে শত্রুতা তৈরী হয়।

স্থানীয় এলাকাবাসী চাদাই মিয়া জানান, কবরস্থান এর গাছ বিক্রি করে কুম কাটা নিয়ে মুরাদ পুলিশদের সাথে গণ্ডগোল হয়। সুজন রা গাছ বক্রিতে বাধা দেয় আর মুরাদ পুলিশ গাছ বিক্রি করবেই। এ নিয়েই দ্বন্দ শুরু হয়।

মুরাদ পুলিশ, বছির ও স্থানীয় নয়নদের সাথে নিয়ে আরো কয়েকজনের মাধ্যমে সুজনদের বাড়ী সহ অনেকের বাড়ী ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে যায়,আমাদের পেলেও কুপিয়ে যেত কিন্তু সবাই তখন পালিয়ে যায়।সে সময় গুলিও করে তারা ।এলাকার মজনু নামে একজনের পায়ে গুলি লাগে অন্য আরেকজনের পুরুষাঙ্গের নিচে গুলি লাগে। এ নিয়ে পুলিশও এসেছিলো ,পরে আর কিছুই হয় নি।

রাজবাড়ী থানার ওসি স্বপন কুমার মজুমদার ঘটনার পর পর ই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি জানান, সোমবার সন্ধ্যায় সুজন তালুকদার নামে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় তাদের এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।পুলিশ তৎপর রয়েছে। পূর্বশত্রুতা নাকি অন্য কোনো কারণে তাকে হত্যা করা হয়েছে তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

About দৈনিক সময়ের কাগজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Scroll To Top
error: Content is protected !!