Friday , April 12 2024
You are here: Home / রাজশাহী ও রংপুর / কুড়িগ্রামে হাট ইজারাদার কতৃক নির্যাতনের শিকার বিক্রেতা 
কুড়িগ্রামে হাট ইজারাদার কতৃক নির্যাতনের শিকার বিক্রেতা 

কুড়িগ্রামে হাট ইজারাদার কতৃক নির্যাতনের শিকার বিক্রেতা 

রফিকুল ইসলাম রনজু (কুড়িগ্রাম) :   কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার ভিতরবন্দ ইউনিয়নের হাট ইজারদারের অতিরিক্ত খাজনা আদায় ও নির্যাতনের শিকার বিক্রেতাগণ। হাট ইজারাদাররা অতিরিক্ত খাজনা আদায় করে, তা দিতে অস্বীকার করলে নানাবিধ খারাপ আচরণ ও গায়ে হাত তোলার ঘটনা ঘটার অভিযোগ উঠেছে।
ঘটনার সূত্রপাত, ভোগডাঙ্গা ইউনিয়নের একজন ব্যক্তি ভিতরবন্দ হাটে গিয়ে হাঁস বিক্রি করে পাঁচশত টাকা,  সেখানে হাট ইজারাদার খাজনা হিসেবে শতকরা ১০ টাকা দাবি করে, সেই হিসেবে হাসের খাজনা হয় ৫০ টাকা। কিন্তু বিক্রেতা ৫০০ টাকা হাস বিক্রি করে ৫০ টাকা খাজনা না দেওয়ার কথা বললে, হাট ইজারাদার ব্যক্তি তার সঙ্গে খারাপ আচরণ ও গায়ে হাত তোলার ঘটনা ঘটায়।
এরই প্রেক্ষিতে ভোগডাঙ্গা ইউনিয়নে ফিরে ইউনিয়ন পরিষদের একজন সদস্যের সঙ্গে বিষয়টি শেয়ার করে।  পরে ইউপি সদস্য তাকে সঙ্গে নিয়ে সেই হাট ইজারদারের সঙ্গে কথা বলতে যায়।

পরে হাট ইজারদার মোঃ আপেল সেই ইউপি সদস্যকে অপমান ও গায়ে হাত তোলে।
যার পরিপেক্ষিতে একটি অস্থির পরিবেশ সৃষ্টি হয়।
বিষয়টি ভোগডাঙ্গা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মোঃ সাইদুর রহমান বিষয়টি অবগত হয় এবং বিষয়টির ব্যবস্থা নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। যার ফলশ্রুতিতে ভোগডাঙ্গা ইউনিয়নের সাধারণ জনগণ দলগত ভাবে সাইদুর রহমান চেয়ারম্যান এর নেতৃত্বে উপস্থিত হন ও তিনি বিষয়টি নিয়ে বলেন,
এই জঘন্যতম ঘটনা এর আগে কখনো ঘটেনি, আমি এটির তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাচ্ছি এবং জড়িতদের শাস্তি দাবী করছি।

ভিতরবন্দ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শফিউল আলম শফি বলেন, বিষয়টি সমাধানের ব্যবস্থা নেয়া হবে।নাগেশ্বরী থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আশিকুর রহমান পিপিএম বলেন,ভিতরবন্দ হাট ইজারাদারের ব্যাপারটি ইতিমধ্যে আমরা জেনেছি, এটি কিভাবে গ্রাম্য সালিশের মাধ্যমে সমাধান করা যায় সে বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

পরে (৭ অক্টোবর, শনিবার) ভিতরবন্দ ইউনিয়ন পরিষদে মাঠে নির্যাতিত ব্যক্তি ও নির্যাতনকারী হাট ইজারাদারকে নিয়ে একটি সালিশী বৈঠক করা হয়। যার নেতৃত্ব দেন, নাগেশ্বরী থানার অফিস ইনচার্জ, মোঃ আশিকুর রহমান পিপিএম, মোঃ সাইদুর রহমান,আলহাজ্ব শফিউল আলম শফি ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। বিচারের ফলাফল অভিযুক্ত ব্যক্তি মোঃ আপেল নগদ ৪০ হাজার টাকা ও সবার সামনে ক্ষমা চাওয়া এবং শাস্তি স্বরূপ বেত্রাঘাত করা হয়।
ভোগডাঙ্গা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মোঃ সাইদুর রহমান এই রায়ে সন্তুষ্ট প্রকাশ করে বলেন, এই বৈঠকের ফলাফলটা  একটি দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে বলে তিনি মনে করেন।

About দৈনিক সময়ের কাগজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Scroll To Top
error: Content is protected !!